স্বাস্থ্য

মেথি শাকের উপকারিতা

শীতকাল শুরু হয়েছে এবং এটি আপনার স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়ার সেরা সময়। এই মৌসুমে অনেক ফল ও সবজি আসে, এগুলো খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। সবুজ শাকসবজি খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য সবসময়ই ভালো। কিন্তু তাজা শাক সবজি সুপার-স্বাস্থ্যকর বলে মনে করা হয়। কিছু মানুষ প্রোটিন গ্রহণ বাড়ানোর জন্য উচ্চ প্রোটিন শাকসবজি গ্রহণ করে।

অনেকে ফাইবার গ্রহণ বাড়ানোর জন্য খাবার বা উচ্চ আঁশযুক্ত খাবার গ্রহণ করেন। পালং শাক এবং মেথির পাতাগুলো সাধারণত আঁশযুক্ত বা শাক আকারে খাওয়া হয় । এর সুগন্ধ খাবারের স্বাদ বাড়ায়। এছাড়াও এটি অনেক খাবারেও ব্যবহৃত হয়।

আয়ুর্বেদ অনুসারে, মেথি শরীরে তাপ উৎপন্ন করে শরীরের তাপমাত্রা স্থিতিশীল রাখতে সাহায্য করে। কিন্তু এটি খাওয়ার আরও অনেক উপকারিতা রয়েছে। এই কারণেই ডাক্তাররা এটিকে কোনও না কোনও আকারে খাওয়ার পরামর্শ দেন। এই নিবন্ধে, আমরা মেথি শাক খাওয়ার উপকারিতা, অপকারিতা, পদ্ধতি এবং পরিমাণ সম্পর্কে বলব।

মেথির শাক দেখতে সুস্বাদু, তাই বেশিরভাগ মানুষ এটি খেতে পছন্দ করে। কেউ কেউ বাড়িতে শুকিয়ে রেখে বাজারে না পেলে তৈরি করে। আসুন জেনে নিই মেথির স্বাস্থ্য উপকারিতা বা স্বাস্থ্যকর উপকারিতা।

মেথির শাক খাওয়ার উপকারিতা

মেথির শাকের পুষ্টিগুণ

মেথি খাওয়ার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এর সেবনে শরীর প্রচুর পুষ্টি পায়। মেথি পাতায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। এছাড়াও এগুলিতে প্রচুর ভিটামিন এবং খনিজ রয়েছে। প্রতি 100 গ্রাম মেথির শাকে পুষ্টিগুণঃ

পুষ্টি উপাদানপ্রতি 100 গ্রাম
ক্যালোরি50 গ্রাম
কার্বোহাইড্রেট58 গ্রাম
মোট ফ্যাট6 গ্রাম
সোডিয়াম67 মিলিগ্রাম
পটাসিয়াম770 মিলিগ্রাম
প্রোটিন23 গ্রাম
আয়রন186% DV
ভিটামিন B6DV এর 30%
ম্যাগনেসিয়ামDV 47%

এছাড়া এতে ভিটামিন সি, কে, এ, ফোলেট, আয়রন ইত্যাদি পাওয়া যায়।

মেথি শাকের উপকারিতা

ডায়াবেটিসে উপকারীঃ মেথি নিরাময় বৈশিষ্ট্য অনেক ক্ষেত্রে দারুচিনির মতো। ডায়াবেটিসে এর সেবন খুবই উপকারী। এতে রয়েছে অ্যান্টি-ডায়াবেটিক উপাদান, যা গ্লুকোজ বিপাক নিয়ন্ত্রণে সক্ষম। মেথি রক্তে শর্করার পরিমাণ কমিয়ে টাইপ 2 ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমায়। এতে, বিখ্যাত অ্যান্টি-ডায়াবেটিক ওষুধ, গ্লিবেনক্লামাইডের মতো এটি রক্তের গ্লুকোজ হোমিওস্টেসিসকে ভারসাম্য বজায় রাখে।

হজম ভালো হয়ঃ মেথি পাতায় উপস্থিত অদ্রবণীয় ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্য কমায়। নিয়মিত মলত্যাগে উৎসাহিত করা হয় এর সেবনে। পেট ফাঁপা এবং বদহজমের চিকিৎসায় মেথিকে খুবই উপকারী। আপনি যদি কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগে থাকেন তবে দুপুরের খাবারে মেথি শাক খান, এতে খুব তাড়াতাড়ি উপকার পাবেন।

ত্বকের দাগ দূর করেঃ ত্বকের দাগ দূর করতে মেথি খাওয়া উপকারী। যদি আপনার মুখে দাগ থাকে, তাহলে প্রাকৃতিক উপায়ে মেথি পাতা ব্যবহার করে সেগুলি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। মেথির রস বা এর সবজি খাওয়া যেতে পারে। চাইলে এক চা চামচ মেথি বীজের গুঁড়া কয়েক ফোঁটা জলের সঙ্গে মিশিয়ে নিন। এবার এই পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এতে মুখের দাগ দূর হবে।

ওজন কমাতেঃ সবুজ মেথিতে ফাইবার বেশি এবং ক্যালরি কম। আপনি যদি এটি পান করেন তবে এতে উপস্থিত ফাইবার এবং অন্যান্য পুষ্টির কারণে আপনি ক্ষুধার্ত বোধ করবেন না। এমন পরিস্থিতিতে আপনি কম জিনিস খান, যা ওজন কমাতে সাহায্য করবে।

চুল লম্বা এবং চকচকে করুনঃ মেথি খেলে চুল লম্বা ও চকচকে হয়। আপনি এটি যে কোনও আকারে সেবন করতে পারেন। এতে আপনি সুবিধা পাবেন। এ ছাড়া মেথির পেস্ট মাথার ত্বকে লাগিয়ে ৪০ মিনিট রেখে দিন। পরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে এক বা দুইবার এটি করলে আপনার চুল লম্বা ও চকচকে হবে।

হাড়ের জন্যঃ মেথিতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে, যা হাড়ের বিপাকের জন্য খুবই ভালো। হাড়ের বিপাক একটি ক্রমাগত প্রক্রিয়া, যেখানে নতুন টিস্যু গঠিত হয়। হাড়ে আঘাত, ফ্র্যাকচার বা স্ক্র্যাচ হলে প্রোটিন এটি মেরামত করতে সহায়ক এবং হাড়ের ঘনত্ব বাড়ায়। তাই মেথি খেলে হাড়ের উপকার হয়।

মেথি খাওয়ার অপকারিতা

মেথি খাওয়ার উপকারিতা অনেক! তবে এর কিছু অসুবিধাও রয়েছে। চলুন সেগুলোও দেখে নেওয়া যাক।

মেথি খেলে ডায়রিয়া হতে পারে। এর স্বাদ গরম। অতএব, কিছু লোকের অতিরিক্ত পরিমাণে সেবন করলে রক্তপাতের সমস্যাও হতে পারে। কারো কারো এটা খেলে অ্যালার্জি হতে পারে। যেমন মুখে ফুলে যাওয়া, গলায় ব্যথা ইত্যাদি। কাঁচা খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। এটা পরীক্ষায় তিক্ত।

মেথি শাক খাওয়ার পদ্ধতি

  • মেথি সবজি হিসেবে খাওয়া যায়।
  • মেথি সিদ্ধ করে এর রস পান করুন।
  • মসুর ডালের সঙ্গে মেথি রান্না করে খাওয়া যায়।
  • মেথির পরোটা খেতে পারেন।
  • মেথি আলু বা পনিরের সঙ্গে সবজি হিসেবে খাওয়া যেতে পারে।

মেথি শাক খাওয়ার পরিমাণ

একজন সুস্থ মানুষ দিনে 300-400 গ্রাম (কাঁচা) মেথি খেতে পারেন। কারণ রান্না করার পর এটি অনেক ওজন কমায়।

উপসংহার

মেথি পাতা বা সবজি খাওয়ার কতটা উপকারিতা তা আপনি ইতিমধ্যেই বুঝতে পেরেছেন। আর দেরি কী, আজ থেকেই এটিকে আপনার ডায়েটে অন্তর্ভুক্ত করুন এবং এর উপকারিতা নিন। আরো তথ্যের জন্য একটি বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (30 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button