স্বাস্থ্য

সরিষার তেলের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ব্যবহার

সরিষার তেলের উপকারিতা ও অপকারিতা এবং ব্যবহার জানতে পারবেন এই পোস্টে। সরিষার তেল বহু শতাব্দী ধরে ব্যবহার হয়ে আসছে। কারণ এতে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা আছে। বেশিরভাগ মানুষ এই তেলটি শুধুমাত্র রান্নার জন্য ব্যবহার করে, তবে এর উপকারিতা শুধুমাত্র রান্নার মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়।

এই তেল শরীরের ছোট-বড় অনেক সমস্যা দূর করতেও সাহায্য করতে পারে, তবে এটিকে কোনো সমস্যার সঠিক চিকিৎসা হিসেবে বিবেচনা করা উচিত নয়। যেকোনো গুরুতর সমস্যার সম্পূর্ণ চিকিৎসা নির্ভর করে চিকিৎসকের পরামর্শের ওপর। এই পোস্টে আমরা সরিষার তেলের ব্যবহার এবং সরিষার তেলের উপকারিতা সম্পর্কে বলছি। এ ছাড়া আমরা সরিষার তেলের অপকারিতা সম্পর্কেও অনেক কিছু জানব।

প্রথমে সরিষার তেলের প্রকারভেদ সম্পর্কে আর জানুন। সরিষার তেলের অনেক প্রকার রয়েছে, যা নিম্নরূপ:

সরিষার তেলের প্রকারভেদ

পরিশোধিত সরিষার তেল: মেশিনের মাধ্যমে সরিষা থেকে এই তেল বের করা হয়। এর স্বাদ তিক্ত। রান্নার জন্য এই ধরনের তেল ব্যবহার করা হয়। কালো, বাদামী বা সাদা সরিষার বীজ থেকে পরিশোধিত সরিষার তেল বের করা হয়।
গ্রেড-১ (কাচ্চি ঘানি): এটি সাধারণত কাচ্চি ঘানি নামে পরিচিত। এটি সরিষার তেলের বিশুদ্ধ রূপ। এই কারণেই বেশিরভাগ গৃহিণী রান্নার জন্য এই তেল ব্যবহার করতে পছন্দ করেন। এই ধরনের সরিষার তেল স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী।
গ্রেড-২: এই তেল রান্নার জন্য নয়, থেরাপির জন্য ব্যবহার করা হয়।

চলুন এবার জেনে নিই সরিষার তেলের উপকারিতা।

স্বাস্থ্যের জন্য সরিষার তেলের উপকারিতা

এখানে আমরা জানাচ্ছি কিভাবে এই তেল শরীরের সাথে সম্পর্কিত সমস্যার জন্য উপকারী।

জয়েন্টে ব্যথা/বাত/পেশীর ব্যথাঃ শুধু আজ নয়, বহু বছর ধরেই জয়েন্টের ব্যথা, বাতের ব্যথা এবং পেশির ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে সরিষার তেল ব্যবহার হয়ে আসছে। নিয়মিত এই তেল দিয়ে শরীরে মালিশ করলে রক্ত ​​সঞ্চালন ভালো হয়। এটি জয়েন্ট এবং পেশী সমস্যা দূরে রাখতে সাহায্য করে। সরিষার তেলে উপস্থিত ওমেগা -3 ফ্যাটি অ্যাসিড জয়েন্টের ব্যথা এবং বাতের সমস্যায়ও সহায়ক প্রমাণিত হয়েছে।

হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখেঃ সরিষার তেল মনোস্যাচুরেটেড এবং পলিআনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড (MUFA এবং PUFA) পাশাপাশি ওমেগা -3 এবং ওমেগা -6 ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ। এই দুটি ফ্যাটি অ্যাসিড ইস্কেমিক হৃদরোগের ঝুঁকি (রক্ত প্রবাহের অভাবের কারণে) 50 শতাংশ পর্যন্ত কমাতে পারে। গবেষণায় বলা হয়েছে যে সরিষার তেলের হাইপোকোলেস্টেরোলেমিক (কোলেস্টেরল-হ্রাসকারী) এবং হাইপোলিপিডেমিক (লিপিড-হ্রাসকারী) প্রভাব রয়েছে। এটি খারাপ কোলেস্টেরলের (LDL) মাত্রা কমাতে পারে এবং শরীরে ভালো কোলেস্টেরলের (HDL) মাত্রা বাড়াতে পারে, যার ফলে হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস পায়।

ক্যান্সারঃ ক্যান্সার একটি মারণ রোগ যা সবাই এড়াতে চায়। সরিষার তেলের ব্যবহার কিছুটা হলেও এই সমস্যা এড়াতে সাহায্য করতে পারে। সরিষার তেলে অ্যালিল আইসোথিওসায়ানেট ক্যান্সার-বিরোধী বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধিকে বাধা দিতে কাজ করে। গবেষণা একই তথ্য প্রমাণ করে।

দাঁতের সমস্যাঃ বিশেষজ্ঞদের মতে, হলুদের সাথে এই তেল ব্যবহার করলে মাড়ির প্রদাহ এবং পিরিয়ডোনটাইটিস (মাড়ির সাথে সম্পর্কিত সংক্রমণ ) থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। সরিষার তেল এবং লবণের ব্যবহার মৌখিক স্বাস্থ্যের উন্নতিতেও কাজ করে। সরিষার তেল, হলুদ ও লবণ পেস্ট হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। এজন্য আধা চা চামচ সরিষার তেল, এক চা চামচ হলুদ এবং আধা চা চামচ লবণ মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। তারপর এই পেস্টটি দাঁত ও মাড়িতে কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করুন। এটি সপ্তাহে তিন থেকে চারবার ব্যবহার করুন।

হাঁপানিঃ হাঁপানি শ্বাসতন্ত্রের সাথে সম্পর্কিত একটি সমস্যা। হলুদ সরিষার তেলের উপকারিতা এই থেকে মুক্তি পেতে কিছুটা হলেও সহায়ক। সরিষার তেলে পাওয়া সেলেনিয়াম হাঁপানির প্রভাব কমাতে সহায়ক।

ব্রেন ফাংশন বুস্ট করতেঃ সরিষার তেলে উপস্থিত ফ্যাটি অ্যাসিডগুলি উপকোষীয় ঝিল্লির গঠন পরিবর্তন করতে সাহায্য করে, যার ফলে ঝিল্লি-বাউন্ড এনজাইমগুলির কার্যকলাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এটি মস্তিষ্কের কার্যকারিতার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর ভিত্তিতে, এটি অনুমান করা যেতে পারে যে সরিষার তেল মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়াতেও সহায়ক।

অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি-ফাঙ্গাল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরিঃ সরিষার তেল অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যে সমৃদ্ধ। এতে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি এজেন্ট প্রদাহজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে কাজ করে। এছাড়াও, সরিষার তেলে উপস্থিত অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্যগুলির কারণে, এটি ডাইক্লোফেনাক তৈরিতেও ব্যবহৃত হয়, যা একটি প্রদাহ-বিরোধী ওষুধ।

সরিষার তেল সম্পর্কিত আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে এটি অপ্রয়োজনীয় ব্যাকটেরিয়া এবং অন্যান্য জীবাণুর বৃদ্ধি রোধ করার ক্ষমতা রাখে। এছাড়াও, এটি ছত্রাকের প্রভাবকে অনেকাংশে কমাতেও সহায়ক। ছত্রাকজনিত কারণে ত্বকের ফুসকুড়ি এবং সংক্রমণের চিকিৎসায় সরিষার তেল সহায়ক।

পোকামাকড় প্রতিরোধকঃ সরিষার তেল প্রয়োগের সুবিধাগুলো কীটপতঙ্গ প্রতিরোধক হিসাবেও অর্জন করে। এই তেল ত্বকে লাগালে মশা বা অন্যান্য পোকামাকড় দূরে থাকে। এছাড়াও, এই শক্তিশালী তেলটি এসিড অ্যালবোপিকটাস মশার প্রভাবকেও নিরপেক্ষ করে।

সামগ্রিক স্বাস্থ্যঃ সরিষার তেল খাওয়ার উপকারিতা সামগ্রিক স্বাস্থ্য ভালো রাখে। সরিষা তেল জয়েন্ট এবং পেশী ব্যথার মতো সাধারণ সমস্যা থেকে ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগ থেকে সুরক্ষা দেয়। একই সঙ্গে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হার্টকে সুস্থ রাখতে কাজ করে সরিষার তেল। অভ্যন্তরীণ স্বাস্থ্যের পাশাপাশি, সরিষাও ত্বককে সংক্রমণ থেকে দূরে রাখে। এটি ফাটা ঠোঁট এবং ত্বকের ফুসকুড়ির জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে।

ত্বকের জন্যঃ সরিষার তেল ত্বকের জন্য কার্যকর। বিশেষ করে, এটি বার্ধক্যের প্রভাব কমাতে একটি ইতিবাচক প্রভাব প্রদর্শন করে। আসলে, একটি গবেষণায় বলা হয়েছে যে সরিষার তেলে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা -3, ওমেগা -6 ফ্যাটি অ্যাসিড, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ই পাওয়া যায়। শরীরে এই উপাদানগুলির অভাব বার্ধক্যজনিত সমস্যাকে ত্বরান্বিত করে।

চুলের জন্যঃ অনেকেই চুলে সরিষার তেল ব্যবহার করেন, যা চুল এবং মাথার ত্বকের জন্য উপকারী। এর ব্যবহার চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এর জন্য সরিষার তেলে উপস্থিত মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড, ওমেগা 3 এবং 6 ফ্যাটি অ্যাসিড সাহায্য করে। এছাড়াও এই তেলে অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল প্রভাব রয়েছে, যা খুশকির সমস্যাকে বাড়তে বাধা দেয়। এটি মাথার ত্বকে চুলকানির সমস্যা থেকেও মুক্তি দেয়।

সরিষার তেলের উপকারিতা জানার পর এর মধ্যে থাকা পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানতে পারবেন।

সরিষার তেলে উপস্থিত পুষ্টিগুণ

সরিষার তেলের বৈশিষ্ট্যের মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টি উপাদান, যা একটি টেবিল ব্যবহার করে সহজেই বোঝা যায়।

পুষ্টি উপাদানপ্রতি100 গ্রাম
শক্তি884 কিলোক্যালরি
মোট লিপিড (চর্বি)100 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট স্যাচুরেটেড11.582 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট মনোস্যাচুরেটেড59.187 গ্রাম
ফ্যাটি অ্যাসিড, মোট পলিআনস্যাচুরেটেড21.23 গ্রাম
সরিষার তেলের পুষ্টিগুণ

এখন, আমরা কীভাবে সরিষার তেল ব্যবহার করা যায় সে সম্পর্কে তথ্য দিচ্ছি।

সরিষার তেল কীভাবে ব্যবহার করবেন

সরিষার তেল অনেক ধরণের খাবার তৈরি করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। এ ছাড়া এই তেল অন্যভাবেও ব্যবহার করা যায়। আমরা নীচে বিস্তারিত এই তথ্য প্রদান করছি.

ব্যবহারবিধি:

  • নিরামিষ এবং আমিষ খাবার তৈরিতে সরিষার তেল ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • এই তেল আচার তৈরিতে ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • এটি লেবু এবং মধুর সাথে সালাদে যোগ করেও ব্যবহার করা যায়।
  • এটি দিয়ে, ডাল ফ্রাই করা যেতে পারে।
  • এছাড়াও এই তেল চুল ও ত্বকে লাগাতেও ব্যবহার করা যায়।

কখন ব্যবহার করতে হবে:

  • এটি থেকে তৈরি নিরামিষ ও আমিষ খাবার বিকেলে বা রাতে খাওয়া যেতে পারে।
  • দুপুরের খাবার ও রাতের খাবার ছাড়াও সকালের নাস্তায় সরিষার তেল দিয়ে তৈরি আচার খেতে পারেন।
  • এটি থেকে তৈরি পনির, টিক্কা এবং বাঁধাকপি মাঞ্চুরিয়ান সন্ধ্যার নাস্তা হিসাবে নেওয়া যেতে পারে।
  • এ ছাড়া চুলে ও ত্বকে লাগাতে গেলে গোসলের পর ত্বক ও চুলে লাগাতে পারেন। অনেকে রাতে ঘুমানোর আগেও চুলে সরিষার তেল লাগান।

কতটা ব্যবহার করতে হবে:

যদিও সরিষার তেল ব্যবহার করার জন্য নির্দিষ্ট পরিমাণ নেই, তবে এটি সর্বদা পরিমিতভাবে ব্যবহার করা উচিত। সঠিক পরিমাণ জানতে খাদ্য বিশেষজ্ঞের সাহায্য নিতে পারেন।

চলুন এবার জেনে নেওয়া যাক সরিষার তেল নিরাপদ রাখার উপায়।

কীভাবে সরিষার তেল দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করবেন?

নিচের বিষয়গুলোর মাধ্যমে আমরা সরিষার তেলের নিরাপত্তা সম্পর্কে জানতে পারি।

শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় পরিমাণে সরিষার তেল কিনুন।
তেল ভালোভাবে সংরক্ষণ করে রাখলে অনেক দিন ব্যবহার করা যায়।
সর্বদা একটি বায়ুরোধী পাত্রে এবং ঘরের তাপমাত্রায় তেল সংরক্ষণ করুন।

সরিষার তেল ব্যবহারের উপকারিতা ও ব্যবহার পদ্ধতি জানার পর এখন আমরা সরিষার তেলের অপকারিতাও জেনে নিই।

সরিষার তেলের অপকারিতা

এই তেল অতিরিক্ত খাওয়ার কারণেও কিছু সমস্যা দেখা দিতে পারে, যা নিম্নরূপ:

সরিষার তেলে ইরুসিক নামক অ্যাসিড থাকে, যা হার্টের ক্ষতি করতে পারে। একটি প্রতিবেদন অনুসারে, ইরুসিক অ্যাসিড হৃৎপিণ্ডের পেশীতে লিপিডোসিস (ট্রাইগ্লিসারাইড জমা) ঘটাতে পারে এবং হার্টের টিস্যুর ক্ষতি করতে পারে।

কিছু লোকের ত্বকে সরিষার তেল ব্যবহারে অ্যালার্জি হতে পারে।

সরিষার তেলের এত উপকারিতা পড়ে অবাক হবেন না, এটি সম্পূর্ণ সত্য, যা অনেক বৈজ্ঞানিক প্রমাণ দ্বারাও প্রমাণিত। তবুও, মনে রাখবেন যে সরিষার তেল শুধুমাত্র এই সমস্যাগুলি থেকে মুক্তি পেতে সহায়ক। এটা কোনো সমস্যার সম্পূর্ণ সমাধান নয়। কেউ কোনো রোগে আক্রান্ত হলে চিকিৎসাকে অগ্রাধিকার দিন। এছাড়াও, শুধুমাত্র ডাক্তারের পরামর্শে এই তেল ব্যবহার করুন। আমরা আশা করি যে আমাদের দ্বারা প্রদত্ত তথ্য পাঠকের জন্য দরকারী প্রমাণিত হবে।

এবার সরিষার তেল সম্পর্কিত পাঠকদের কিছু প্রশ্নের সমাধান করার চেষ্টা করা যাক।

সচরাচর জিজ্ঞাস্যঃ

কচি ঘানি সরিষার তেল কি?

এটি ঠান্ডা চাপা সরিষার তেল, যা অপরিশোধিত গ্রেড 1 সরিষার তেল নামেও পরিচিত। এটি এক ধরণের সরিষার তেল, যার সম্পর্কে আমরা উপরের বিভাগে তথ্য দিয়েছি।

আমরা কি ভেজা চুলে সরিষার তেল লাগাতে পারি?

না, ভেজা চুলে সরিষার তেল লাগানো উচিত নয়। গোসলের পর চুল হালকা শুকাতে দিন বা তোয়ালে দিয়ে মুছে ব্যবহার করুন, যাতে চুলে সরিষার তেল লাগানোর উপকারিতা আরও ভালোভাবে পাওয়া যায়।

নিয়মিত সরিষার তেল লাগালে কি ত্বক কালো হয়ে যায়?

না, সরিষার তেল নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক কালো হয় না, তবে ত্বককে উজ্জ্বল করে তুলতে পারে।

আমার চুলে কতক্ষণ সরিষার তেল রাখতে হবে?

সরিষার তেল লাগিয়ে সারা রাত রেখে দিতে পারেন।

পরিশোধিত সরিষার তেল কি ভালো?

না, অপরিশোধিত সরিষার তেল পরিশোধিত তেলের চেয়ে ভালো। এটি প্রাকৃতিক এবং স্বাস্থ্যকর।

সরিষার তেল থেকে চর্বি দূর করার উপায় কি?

পুরনো পদ্ধতির সাহায্যে সরিষার তেল মেদ কমাতে পারে। এর জন্য আপনি সরিষা পিষে পানির সাথে মিশিয়ে এই মিশ্রণ থেকে তেল পেতে পারেন। এই পদ্ধতিতে প্রাপ্ত তেলে সাধারণত অন্যান্য তেলের তুলনায় কম চর্বি থাকে।

সরিষার তেল ও রসুন একসঙ্গে খেলে কী কী উপকার পাওয়া যায়?

সরিষার তেলে ভাজা রসুন সবজি তৈরির সময় খাওয়া যেতে পারে। সেই সঙ্গে সরিষার তেলে রসুন মিশিয়ে নাকে ব্যবহার করলে নাক ডাকার সমস্যা কমে যায়।আ

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (16 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button