হেয়ার স্টাইল

ড্যামেজ চুলের যত্ন

আপনি কি মনে করেন যে আপনার চুল আর চকচকে নেই? আপনার চুল শুষ্ক এবং প্রাণহীন দেখায়? আপনি কি নীচের অংশে আপনার চুল বিভক্ত করেছেন? যদি এই প্রশ্নের যেকোনো একটির জন্য আপনার উত্তর ‘হ্যাঁ’ হয়, তবে আপনার জন্য এটি জানা গুরুত্বপূর্ণ যে আপনার চুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং সঠিক যত্ন প্রয়োজন। এই পোস্টে, আমরা ড্যামেজ চুল, এর বিভিন্ন প্রকার, কারণ, চিকিৎসা, ঘরোয়া প্রতিকার এবং আরও অনেক কিছু সম্পর্কে জানব!

ড্যামেজ চুল কি?

ড্যামেজ চুল মানে শুধু বিভক্ত হওয়া নয়। ড্যামেজ চুলের ক্ষেত্রে, চুলের বাইরের স্তর অর্থাৎ কিউটিকেলে ফাটল দেখা দেয়। একবার কিউটিকল উন্মুক্ত হয়ে গেলে, আপনার চুল আরও ক্ষতি এবং ভাঙার ঝুঁকিতে থাকে। ক্ষতিগ্রস্থ হলে আপনার চুলও ঝরঝরে বা প্রাণহীন দেখাতে পারে। সত্যি বলতে কি, ক্ষতিগ্রস্থ চুল পরিচালনা করা খুব কঠিন। আপনি যদি সেই ব্যক্তিদের মধ্যে একজন হন যারা মনে করেন যে চুল কাটার পরে চুলের ক্ষতি হ্রাস বা শেষ হবে, তবে আপনি 100% ভুল। চুলের ক্ষতি সাধারণত স্থায়ী হয় কারণ এগুলি মৃত কোষের সংগ্রহ, যা তাদের মেরামত করা কঠিন করে তোলে। এর চিকিৎসা হলো সময় এবং সেই কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ ধাপ, যা অনুসরণ না করলে কোনো কাজ হবে না।

ড্যামেজ চুলের ধরন কি কি?

কখনও কখনও এটা স্পষ্ট কেন আপনার চুল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কিন্তু অনেক সময় আপনি নিজেই জানেন না আপনার চুলের ক্ষতির কারণ কী। আপনি যখন আপনার চুলের সঠিক যত্ন না নেন, রং করেন, ব্লিচ করেন, স্টাইলিং টুল ব্যবহার করেন, তখন আপনার চুলের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

বিভক্ত চুলঃ বিভক্ত চুল খুব খারাপ দেখায় যদি আপনি ঘনিষ্ঠভাবে তাকান। তবে দূর থেকে তাদের শনাক্ত করা যায় না। কিন্তু চুল যখন বিভক্ত হয়ে যায়, তার মানে চুলের ক্ষতি খুব বেশি। এটি এড়াতে, আপনার নিয়মিত চুল কাটা রাখা গুরুত্বপূর্ণ। এটি আপনার খাদ্যে বায়োটিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি এবং আয়রনের অভাবের কারণে হতে পারে।

রঙের ক্ষতিঃ আপনি আপনার চুলে একটি সুন্দর রঙ দিতে চান বা শুধু সাদা চুল আড়াল করতে চান, আপনি বাড়িতে আপনার চুল রং করেছেন। আপনি এমনকি এটা কি রং ছিল খেয়াল করেননি! রাসায়নিক রং আপনার চুলের প্রাকৃতিক আর্দ্রতা ছিনিয়ে নেয় এবং শুষ্ক করে তোলে। মনে রাখবেন যে অপ্রাকৃত রং পরিচালনা করা খুব কঠিন। যদিও টাচ আপের জন্য সময় বাড়ানোও সাহায্য করে, তবে 8 থেকে 10 সপ্তাহের পরেই টাচ আপ করা ভাল।

রাসায়নিক ক্ষতিঃ আপনি আপনার চুলে রঙ লাগিয়েছেন কিন্তু আপনার চুলের কতটা ক্ষতি করবে তা ভাবেননি। বেশিরভাগ রঞ্জক পদার্থে ব্লিচ এবং অনেক রাসায়নিক থাকে, যা আপনার চুলের প্রাকৃতিক রঙ কেড়ে নেয়। ক্লোরিন আপনার চুল থেকে আর্দ্রতা দূর করে যা আপনার চুলকে শুষ্ক এবং ভাঙ্গার যোগ্য করে তোলে। একইভাবে, সঠিক পিএইচ ব্যালেন্স সহ শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার ব্যবহার না করাও চুলে রাসায়নিক ক্ষতি করে।

তাপের ক্ষতিঃ আপনি আপনার চুলের স্টাইল করতে পছন্দ করেন, কিন্তু আপনি কি জানেন যে তাপ স্টাইল করার ফলে কিউটিকল বাড়ে এবং চুলের ফাইবারগুলি রান্না হয়? উচ্চ তাপমাত্রায় তাপ ব্যবহার করলে চুল প্রাণহীন এবং ক্ষতির কাছাকাছি চলে যায়। যদি আপনাকে ব্লো ড্রাই করতেই হয়, তাহলে অন্তত 15 সেন্টিমিটার বা 6 ইঞ্চি দূরত্ব থেকে তা করুন ৷ এর তাপমাত্রা কম রাখুন। প্রাকৃতিক বাতাসকে তার কাজ করতে দেওয়া ভাল।

চুল পড়াঃ আপনার চুল যদি অনেক বেশি পড়ে তাহলে তার মানে আপনি চুলের ক্ষতির শিকার। এটি গ্রহণ করতে আপনার কিছুটা সময় লাগতে পারে তবে এটি সত্য। চিরুনি করার সময়, গোসল করার সময় আপনার চারপাশে চুলের স্তূপ থাকে। সকালে ঘর ঝাড়ু দিতে গেলে আবর্জনার সাথে অনেক চুল পড়ে।

আরো পড়ুনঃ

ড্যামেজ চুলের কারণ কী?

স্ট্রেসঃ স্ট্রেস এমন একটি অবস্থা যা আপনাকে কেবল ভিতর থেকে খায় না, আপনার শরীরে এর ফলাফলও দেখাতে শুরু করে। এর অন্যতম পরিণতি চুলের ক্ষতি! স্ট্রেস চুলের ফলিকলকে এমন একটি পর্যায়ে পাঠায় যে তারা মোটেও নতুন চুলের স্ট্র্যান্ড তৈরি করে না। চুল পড়া সময়ের সাথে সাথে বাড়তে থাকে, আপনি যত ভালো পণ্য ব্যবহার করছেন না কেন। এর জন্য প্রথম এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল স্ট্রেস ম্যানেজ করা। এছাড়াও, সঠিক ডায়েট এবং সঠিক চুলের যত্নের রুটিন দিয়ে, আপনি চুলের ক্ষতিকে বিপরীত করতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ

ব্লিচিংঃ ব্লিচিং এমন একটি প্রক্রিয়া যেখানে আপনার চুল আপনার প্রাকৃতিক চুলের রঙের চেয়ে এক বা দুই শেড কম রঙ করা হয়। ব্লিচিং চুলকে শুষ্ক, ভাঙ্গা এবং প্রাণহীন করে তোলে। এর ফলে চুলের স্থিতিস্থাপকতাও শেষ হয়ে যায়। ব্লিচিং এর ক্ষতিকর প্রভাব থেকে আপনার চুলকে রক্ষা করতে আপনার মাথা ঢেকে রাখুন। আপনার চুল ভালোভাবে ময়েশ্চারাইজ করুন। এছাড়াও, সুইমিং পুলে যাওয়া এড়িয়ে চলুন, তা না হলে চুলের অবশিষ্ট আর্দ্রতাও নষ্ট হয়ে যাবে।

রাসায়নিক রংঃ চুলকে সুন্দর করার জন্য চুলের রঙ নিবেন কিন্তু এর জন্য ভারী মূল্য দিতে হবে তা ভাববেন না। আর এতে চুলের ক্ষতি হয়। চুলের রঙের কারণে, আপনার চুলের আর্দ্রতা কমতে শুরু করে এবং এটি প্রাণহীন হতে শুরু করে। নির্জীব চুল ড্যামেজ হয়ে ভাঙতে শুরু করে। আপনার চুল রঙ করার জন্য আপনার প্রাকৃতিক চুলের রঙের তিনটি শেডের মধ্যে শুধুমাত্র রঙ ব্যবহার করা উচিৎ।

ড্যামেজ চুলের যত্ন

ড্যামেজ চুলের যত্ন কঠিন কিন্তু অসম্ভব নয়। এটি কঠিন বলা হয় কারণ এটি অবিলম্বে ফলাফল দেয় না। এটা সময় লাগে, আপনি প্রথম মাসে কোনো ফলাফল নাও দেখতে পারেন। কিন্তু ধীরে ধীরে আপনার ক্ষতিগ্রস্ত চুল সারতে শুরু করে। ধৈর্য এই সময়ে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্র। শ্যাম্পু করার সময় চুলে ঘষে না দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন এবং শ্যাম্পু নিজে থেকেই চুলে আসতে দিন। চুল ধোয়ার পরে, এটি ঘষবেন না, তবে এটি একটি সুতির তোয়ালে বা টি-শার্টে মুড়িয়ে রাখুন যাতে এটি জল শুষে নেয়। এর পর চুলকে স্বাভাবিকভাবে শুকাতে দিন। ভেজা চুল আঁচড়াতে ভুলবেন না। গরম চুলের স্টাইলিং থেকে বিরত থাকাই ভালো। চুলে জট থাকলে চওড়া দাঁতের চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ানো ভালো। রাতে ঘুমানোর সময় আঁটসাঁট বিনুনি করবেন না।

ড্যামেজ চুলের চিকিৎসাঃ ড্যামেজ চুলের চিকিৎসা করা সহজ নয়, তবে সঠিক উপায়ে নিয়মিত এটি করার মাধ্যমে আপনি অবশ্যই আপনার চুলের ক্ষতি ঠিক করতে পারেন।

ড্যামেজ চুলের যত্নের রুটিনঃ নিজের জন্য একটি নিয়মিত চুলের যত্নের রুটিন তৈরি করুন। এর জন্য সঠিক শ্যাম্পু, কন্ডিশনার, তেল এবং সিরাম বেছে নেওয়া জরুরি। নিশ্চিত করুন যে আপনার চুলের যত্নের পণ্যগুলি সালফেট, প্যারাবেন, অ্যালকোহল, রঞ্জক এবং কৃত্রিম সুগন্ধ মুক্ত। ধুলো, ময়লা, সিবাম এবং ত্বকের মৃত কোষ থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত চুল ধোয়া গুরুত্বপূর্ণ।

চুলের সিরাম প্রয়োগ করুনঃ আমাদের চুল সুস্থ রাখতে সিরাম একটি অপরিহার্য জিনিস। এটি আমাদের চুলেও উজ্জ্বলতা আনে। আপনার মাথার ত্বকে নয়, আপনার চুলের উপরে এবং প্রান্তে সিরাম লাগান, না হলে আপনার চুল আঠালো দেখাবে।

চুল কাটাঃ ড্যামেজ চুলের প্রান্ত এড়াতে, নিয়মিত আপনার চুল ট্রিম করা গুরুত্বপূর্ণ। এটি না করলে আপনার চুল দুর্বল হয়ে যায় এবং অবশেষে ভেঙে যায়।

চুলের তেলঃ আমাদের ত্বকে যেমন ক্রিম প্রয়োজন, ঠিক তেমনি চুলে নিয়মিত তেল লাগাতে হবে। চুলে তেল লাগালে চুলে পুষ্টি পাওয়া যায়। চুলেরও গভীর কন্ডিশনিং আছে এবং নরম হয়। নারকেল তেল আপনার চুলের কিউটিকল ভেদ করে চুল মেরামত করে। বাদাম তেল শুষ্ক চুলকে পুনরায় হাইড্রেট করে। অলিভ অয়েল একটি দারুণ ময়েশ্চারাইজিং এজেন্ট, যা আপনার চুলের হারানো আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে কাজ করে। আর্গান অয়েলে উপস্থিত ভিটামিন এ এবং ভিটামিন ই চুলে আর্দ্রতা এনে চুল ভেঙ্গে যাওয়া রোধ করে।

আরো পড়ুনঃ

ড্যামেজ চুলের যত্নে ঘরোয়া উপায়

ড্যামেজ চুলের যত্ন নিতে অনেক ঘরোয়া উপায় রয়েছে। আপনার রান্নাঘরের কিছু উপাদান ব্যবহার করা যেতে পারে দুর্দান্ত ঘরে তৈরি হেয়ার মাস্ক যা আপনার চুলকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

অ্যাভোকাডো এবং ডিমের মাস্ক

এটি এমনই একটি হেয়ার মাস্ক, যা আপনার চুলকে স্বাস্থ্যকর করে তোলে। এর জন্য একটি পাকা অ্যাভোকাডো এবং একটি ডিম মিশিয়ে হেয়ার মাস্ক তৈরি করতে হবে। এই মাস্কটি চুলে ভালো করে লাগিয়ে প্রায় আধা ঘণ্টা রেখে দিন। পরে শ্যাম্পু করে ফেলুন। ডিমে প্রোটিন, ভিটামিন এ, ভিটামিন ডি এবং ভিটামিন ই থাকে যা চুলের অবস্থা ভালো করে। ডিম চুলের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতেও কাজ করে। অ্যাভোকাডোতে প্রচুর ভিটামিন, খনিজ এবং ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে, যা আপনার চুলকে স্বাস্থ্যকর করে তোলে।

কলা এবং দই চুলের মাস্ক

ঠাকুরমাদের এই প্রতিকারগুলি হাজার বছর ধরে ব্যবহার করা হচ্ছে এবং তার ভিত্তিতে খুব ইতিবাচক ফলাফলও দেখা গেছে। এই টিপসের ভিত্তিতে, কলা এবং দইয়ের একটি হেয়ার মাস্ক তৈরি করতে এই দুটিকে ভালভাবে মিশিয়ে নিন। পাশাপাশি অলিভ অয়েল যোগ করতে ভুলবেন না। এই মিশ্রণ চুলে এবং মাথার ত্বকে লাগান এবং পরে শ্যাম্পু করুন। এই মাস্কে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, পটাশিয়াম, অনেক ভিটামিন এবং প্রাকৃতিক তেল, যা চুলে আর্দ্রতা আনতে কাজ করে।

আরো পড়ুনঃ

নিয়মিত ব্যায়ামঃ নিয়মিত ব্যায়াম চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এবং চুল পড়া রোধ করে। এটি মাথার ত্বককে সুস্থ রাখে এবং ছিদ্র আটকে যাওয়া প্রতিরোধ করে। আপনার চুলের ফলিকলগুলি পুষ্ট হয় এবং রক্তের প্রবাহ বৃদ্ধি পায় যা মাথার ত্বকে আরও পুষ্টি এবং অক্সিজেন নিয়ে আসে। এমনকি সপ্তাহে চার দিন আধা ঘণ্টার ব্যায়ামও চুলের ক্ষতি মেরামত করতে সাহায্য করতে পারে।

নিয়মিত চুল ধোয়াঃ নিয়মিত চুল ধোয়া আপনার মাথার ত্বক পরিষ্কার রাখে এবং সেখান থেকে অতিরিক্ত তেলও দূর করে। কিন্তু আরও গুরুত্বপূর্ণ, আপনি কিভাবে শ্যাম্পু করছেন? আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার চুলের গোড়ায় শ্যাম্পু করুন। শ্যাম্পু অপসারণের জন্য পানি ব্যবহার করলে চুলের প্রান্ত স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিষ্কার হয়ে যাবে।

স্বাস্থ্যকর খাদ্যঃ আপনি যদি ক্ষতিগ্রস্থ চুল থেকে মুক্তি পেতে চান, তাহলে আপনার ডায়েটে প্রচুর সবুজ শাক-সবজি যেমন পালং শাক, ব্রকলি এবং লেটুস অন্তর্ভুক্ত করুন। এগুলো ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ। এই উভয় ভিটামিনই সিবাম গঠনে সাহায্য করে, যা একটি প্রাকৃতিক চুলের কন্ডিশনার এবং আপনার মাথার ত্বকে আর্দ্রতা প্রদান করে।

চুল ক্ষতিগস্ত হলে আপনার চুল খুব খারাপ দেখাতে শুরু করে। এর অনেক কারণ রয়েছে, যা দূর করে আপনি আপনার চুলকে আরও ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করতে পারেন। সঠিক চুলের যত্নের রুটিন, সঠিক পণ্য ব্যবহার করা এবং ঘরে তৈরি মাস্ক প্রয়োগ ক্ষতিগ্রস্থ চুলকে তার আসল অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। উপরে উল্লিখিত ক্ষতিগ্রস্থ চুলের যত্নের টিপসের সাহায্যে, আপনি আপনার ক্ষতিগ্রস্ত চুল মেরামত করতে সফল হবেন।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (37 Reviews)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button