স্কিন কেয়ার

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেয়ার সঠিক উপায়

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন কিভাবে নিবেন? আপনি যদি সঠিক গাইডলাইন খুজছেন, তাহলে আপনার জন্য এই পোস্ট।

সুন্দর নাক-ম্যাপ থাকা সত্ত্বেও আপনার মুখ কি সবসময় শুকিয়ে যায়? আপনার মুখে তেলের পুরু আস্তরণের কারণে ছবিগুলো ভালো হয় না? যাদের তৈলাক্ত ত্বক তাদের জন্য এটি একটি বড় সমস্যা। যদি আপনার ব্যয়বহুল মেকআপ এবং সুগন্ধি প্রসাধনীগুলিও বিস্ময়কর কাজ করতে সক্ষম না হয়, তবে সবকিছু ছেড়ে ঘরোয়া প্রতিকার গ্রহণ করুন।

মজার বিষয় হল এই প্রতিকারটি সম্পূর্ণ দেশীয় এবং বাজেট বান্ধব, এবং একই সাথে এটি 100% নিরাপদ। এর জন্য আপনাকে বেশি কিছু করতে হবে না। ছোট ছোট ঘরোয়া কাজ সামলাতে গিয়েও আপনি আপনার তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নিতে পারেন, আপনার শুধু দরকার একটু ধৈর্য। তারপর দেখবেন মুখটা এমনভাবে ফুটবে যে ক্যামেরাও বলবে- মুখটা নাকি চাঁদ খাওয়াচ্ছে।

তৈলাক্ত ত্বক কি?

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেওয়ার সময়, আপনি অবশ্যই হাজার বার ভেবেছেন কেন আপনার ত্বক এমন! কেন অন্যদের মতো স্বাভাবিক হতে পারে না! তাই জেনে নিন সকলেরই অল্প অল্প করে তৈলাক্ত ত্বক থাকে। কারো কারো জন্য এটা বেশি। এর কারণ হল আমাদের মুখ ও নাকের উপর অতিরিক্ত সিবাম জমে যাওয়া। Tvag মানে চামড়া এবং চর্বি মানে তেল। আসলে আমাদের ত্বকে পাওয়া যায় এই তেল এটিকে স্বাস্থ্যকর এবং উজ্জ্বল করে তোলে।

এছাড়া এটি ত্বককে কোমল রাখে। কোনো কারণে এর উৎপাদন প্রয়োজনের চেয়ে বেশি হলে ত্বকে এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে শুরু করে। আপনার তথ্যের জন্য, আমরা আপনাকে বলে রাখি যে আমাদের চুল এবং ত্বকে সেবেসিয়াস গ্রন্থি নামক গ্রন্থি রয়েছে যেগুলি থেকে সিবাম বের হয়, যার অতিরিক্ত উৎপাদন ত্বককে শুষ্ক ও মসৃণ করে তোলে। ফলে ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যায়।

তৈলাক্ত ত্বকের কারণ

এটা সকলের দ্বারা সুপরিচিত এবং বিশ্বাস করা হয় যে আমরা যে ধরণের জীবনধারা পরিচালনা করছি তা সরাসরি আমাদের শরীরকে প্রভাবিত করে। আমাদের মায়েদের মুখে যে উজ্জ্বলতা এখনো দেখা যায়, ত্বকে আর কোনো উজ্জ্বলতা নেই। আপনি ইতিমধ্যে জানেন যে তৈলাক্ত ত্বকের প্রধান কারণ হল অতিরিক্ত সিবাম নিঃসরণ। প্রধানত আমাদের হরমোন এর জন্য দায়ী।

অনেকের ক্ষেত্রে এটি জেনেটিকও হয়ে থাকে। বয়ঃসন্ধি আসার সাথে সাথে এই ক্ষরণ আগের চেয়ে বেশি হয়ে যায়। আমরা আপনাকে আরও বলি যে এই সমস্যাটি পুরুষ এবং মহিলা উভয়েরই সমানভাবে হতে পারে, কারণ এই গ্রন্থিগুলি উভয়ের মধ্যেই পাওয়া যায়। তবে এই প্রধান কারণগুলি ছাড়াও আরও অনেক কারণ রয়েছে যার কারণে আমাদের ত্বক সবসময় তৈলাক্ত থাকে। আসুন তাদের সম্পর্কে জানিঃ

খারাপ ডায়েট তৈলাক্ত ত্বকের কারণঃ একটি সুস্থ শরীর এবং উজ্জ্বল মুখের পিছনে রয়েছে আমাদের সুষম খাদ্য এবং কঠোর শৃঙ্খলা। যেখানেই এই শৃঙ্খলা বিঘ্নিত হয় এবং খাবারে অবহেলা হয়, তখন বুঝুন স্বাস্থ্যের অবনতি হয়েছে। আর মুখও শুকিয়ে যাবে। বেশি তেল-মশলা খাওয়া আমাদের জন্য ভালো নয়, তাহলে আপনার ত্বক যদি একটু তৈলাক্ত হয়, তাহলে বুঝবেন সমস্ত চর্বি শুধু মুখেই দেখা যায়। ডায়েটিশিয়ানের মতে, চর্বিযুক্ত ও অতিরিক্ত লবণ খাওয়ার কারণে ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যায়। এটি জাঙ্ক ফুড প্রেমীদের ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।

কিছু ওষুধ খেলেও ত্বক তৈলাক্ত হয়ঃ মহিলাদের তৈলাক্ত ত্বক হওয়ার অন্যতম কারণ হল ঘন ঘন গর্ভনিরোধক এবং উর্বরতা বাড়ানোর বড়ি খাওয়া। এই স্টেরয়েড ত্বককে তৈলাক্ত করে। এটি ত্বককে ডিহাইড্রেট করে, যা ত্বকে অতিরিক্ত চর্বি তৈরি করে।

বয়ঃসন্ধিকালে ত্বক তৈলাক্ত হয়ে যায়ঃ বয়ঃসন্ধিকাল শুরু হয় 9 থেকে 10 বছর বয়সে। শরীরে অনেক হরমোনের পরিবর্তন হয়। এই হরমোনগুলি এই গ্রন্থিগুলিকে উদ্দীপিত করে, যার ফলে সেগুলি অতিরিক্ত সক্রিয় হয়ে ওঠে, যার ফলে স্ক্লেরার নিঃসরণ আগের চেয়ে বেড়ে যায় এবং তারপরে এই চর্বি ত্বকের ছিদ্রগুলিতে জমা হয়। ধীরে ধীরে, এতে ব্যাকটেরিয়া তৈরি হতে শুরু করে, যা ব্রণ সৃষ্টি করে।

হরমোনের পরিবর্তন ত্বককে তৈলাক্ত করেঃ এই গ্রন্থি 15 থেকে 35 বছর বয়সে সবচেয়ে সক্রিয়। এর জন্য একটি মেডিকেল পরিভাষা আছে যাকে সেবোরিয়া বলা হয়। এটি ত্বকের চর্বি গ্রন্থিগুলির একটি ত্রুটি এবং এটি বিভিন্ন কারণে ঘটতে পারে। যৌন হরমোন এই গ্রন্থিগুলিকে আরও সক্রিয় করে তোলে। বিশেষ করে এন্ড্রোজেন। পুরুষদের ক্ষেত্রে, টেস্টোস্টেরন এই গ্রন্থিগুলিকে সক্রিয় করতে ভূমিকা পালন করে। মহিলাদের মধ্যে প্রোজেস্টেরন এবং অ্যান্ড্রোজেন হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণে, তারা PCOS-এর প্রবণতা, যা তৈলাক্ত ত্বকের কারণ হয়।

প্রসাধনীর অত্যধিক ব্যবহারেও ত্বক তৈলাক্ত হয়ঃ প্রতিদিনের মেকআপে থাকাটা যদি আপনার বাধ্যতামূলক হয়ে থাকে, তাহলে জেনে নিন এটিও তৈলাক্ত ত্বকের অন্যতম বড় কারণ। প্রতিদিন মেকআপ করা আপনার ত্বককে সমস্যায় ফেলতে পারে। কিছু প্রসাধনী আছে যেগুলোতে ত্বকে উজ্জ্বলতা আনতে কিছু কঠোর রাসায়নিক যুক্ত করা হয়। এটি ত্বকের ছিদ্রগুলিকে আটকে রাখে, যা ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি করতে দেয়।

স্ট্রেস তৈলাক্ত ত্বকের কারণঃ একজন মানুষ যখন মানসিক চাপে থাকে, তখন কর্টিসল নামক একটি বিশেষ রাসায়নিক নির্গত হয়, যা অতিরিক্ত তেলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। এই কারণেই তৈলাক্ত ত্বকের মানুষেরা একটু মানসিক চাপ নিলেই ব্রণ হয়ে যায়।

তৈলাক্ত ত্বকের চিকিৎসা

পুঁজের পাশাপাশি ব্রণ থাকলে অবশ্যই ত্বকের চর্মরোগ বিশেষজ্ঞকে দেখান, অন্যথায় ভবিষ্যতে এই সমস্যা অনেক বেড়ে যেতে পারে। সমস্যাটি খুব বড় না হলে আপনি একটি রেটিনয়েডও প্রয়োগ করতে পারেন। কোথাও ডাক্তার তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ব্যক্তিকে হরমোন লিখে দেন ও থেরাপি দেন। এ জন্য অনেক ধরনের ত্বকের চিকিৎসা যেমন বোটক্স, লেজার ইত্যাদি দেওয়া হয়।

আয়ুর্বেদ ও প্রাকৃতিক চিকিৎসায়ও এর চিকিৎসা করা হয়। সৌন্দর্য এবং সুস্থতা কেন্দ্রগুলিতে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য প্রসাধনী কাদামাটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়। একে ফ্রেঞ্চ গ্রিন ক্লেও বলা হয়। এটা পাউডার পাওয়া যায়। মাসে একবার এই মাস্কটি লাগালে তৈলাক্ত ত্বকের সমস্যা শেষ হয়। এছাড়াও তৈলাক্ত ত্বকের জন্য আরও অনেক মাস্ক যেমন চারকোল মাস্ক, মাড ফেস মাস্ক, পিলফ মাস্ক, চকো এবং ক্যাফেইন মাস্ক ইত্যাদি ব্যবহার করা হয়।

এছাড়াও তৈলাক্ত ত্বকের যত্নে ডায়েটিশিয়ানরা কিছু টিপসও দিয়ে থাকেন। তাদের মতে, লবণ ও চিনি কমাতে হবে। এতে আপনার ত্বকও পাতলা হবে এবং ত্বকে অতিরিক্ত তৈলাক্ততাও থাকবে না। প্রক্রিয়াজাত খাবার এড়িয়ে চলুন এবং ওমেগা-৩ সমৃদ্ধ খাবার খান।

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেওয়ার ঘরোয়া উপায়

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেয়ার নিয়ম
তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেয়ার নিয়ম

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেয়ার জন্য বাজারে অনেক চিকিৎসা পাওয়া যায়। আপনি যদি চান, আপনি এই সমস্ত জিনিসগুলো সম্পন্ন করতে পারেন, কিন্তু প্রত্যেকের সামর্থ্য হয় না। পুরনো অভ্যাস অনুযায়ী বাড়িতে চিকিৎসা করলে ভালো হবে। আসুন জেনে নেই কোন ঘরোয়া উপায়ে আপনি আপনার তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নিতে পারবেনঃ

দইঃ দই শুধু খেতেই নয়, লাগাতেও সেরা ফেসপ্যাক। এটি স্বাভাবিক থেকে শুষ্ক এবং তৈলাক্ত ত্বকে প্রয়োগ করা যেতে পারে, তবে এটি তৈলাক্ত ত্বকে সবচেয়ে উপকারী। এতে উপস্থিত ল্যাকটিক অ্যাসিড ত্বককে তেলমুক্ত রাখার পাশাপাশি এটিকে উজ্জ্বল করে তোলে। তৈলাক্ত ত্বকের লোকেরা বেসন মিশিয়ে এটি লাগান, তাহলে ত্বক পাতলা ও তারুণ্য বজায় থাকবে।

ওটমিলঃ দইয়ের মতো ওটমিলও ত্বক ও স্বাস্থ্য উভয়ের জন্যই উপকারী। এটি সিবামের অত্যধিক উৎপাদন বন্ধ করতে সক্ষম। এটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি। তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেয়ার জন্য এটি একটি দুর্দান্ত ফেস স্ক্রাবও। তৈলাক্ত ত্বকের জন্য গ্রিন টি-এর পানিতে মিশিয়ে লাগান। সপ্তাহে দুবার লাগালে আপনার তৈলাক্ত ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে।

হলুদঃ হলুদ অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল। আপনি অবশ্যই সচেতন থাকবেন যে আমাদের বড় শরীরে আঘাত লাগলে হলুদের দুধ পান করার পরামর্শ দেওয়া হয়। হলুদের পেস্ট আহত স্থানেও প্রয়োগ করা হয়, যাতে এটি যে কোনও ধরণের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে। হলুদদুধের মিশ্রণ তৈলাক্ত ত্বকের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। আপনার ত্বক যদি খুব তৈলাক্ত হয়, তাহলে গোলাপ জলের সাথে মিশিয়ে লাগান। এটি আপনার ত্বককে টোন করবে এবং এটিকে উজ্জ্বল করবে।

লেবুঃ লেবু ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ। সাইট্রিক অ্যাসিড হওয়ায় এটি অ্যাস্ট্রিঞ্জেন্ট হিসেবে কাজ করে। একটি তুলোর বল লেবুর রস এবং পাতিত জল মিশিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন কিছুক্ষণ। সপ্তাহে অন্তত দুবার এই প্রক্রিয়াটি করুন। ত্বক হয়ে উঠবে শিশুর ত্বকের মতো।

মধুঃ মধু অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং অ্যান্টিসেপটিক। এটি খেতে যত বেশি স্বাদ, মুখে লাগালে তত বেশি উপকার পাওয়া যায়। মধুতে পরিষ্কার করার বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ত্বককে ভেতর থেকে পরিষ্কার করে। দুধবাদাম পেস্টের সাথে মিশিয়ে মুখে লাগান, ১০ মিনিটের মধ্যে মুখ ফুটে উঠবে।

তৈলাক্ত ত্বক প্রতিরোধের উপায়

তৈলাক্ত ত্বক প্রতিরোধ করতে প্রতিদিন আপনার মুখ সাধারণ জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

নিমের প্যাক আপনার ত্বকের জন্য সবচেয়ে ভালো।

ফেসপ্যাকের পরে সবসময় বরফের টুকরো লাগান। এটি মুখের চর্বি দূর করতে সহায়ক।

মুখ নরম ও চকচকে রাখতে তেলমুক্ত ময়েশ্চারাইজার লাগান।

আপনি যখনই বাইরে যান সবসময় সানস্ক্রিন লাগান।

এ ছাড়া খাবারের দিকেও নজর দিতে হবে। ভাজা খাবার কম খান এবং লবণ ও চিনি এড়িয়ে চলুন।

কখন একজন ডাক্তারকে দেখাবেনঃ এই ঘরোয়া প্রতিকারে সমস্যা না হলে আপনাকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে। অনেক সময় তৈলাক্ত ত্বক কোনো শারীরিক ঘাটতি বা হরমোনের ভারসাম্যহীনতার কারণেও হয়ে থাকে। এই ক্ষেত্রে, শুধুমাত্র ডাক্তার সঠিকভাবে চিকিৎসা করতে পারেন। শুধুমাত্র একজন ভালো চর্মরোগ বিশেষজ্ঞের কাছে যান।

তৈলাক্ত ত্বক ভালো না খারাপ?

তৈলাক্ত ত্বকের উপকারিতা রয়েছে। তেল মুখ রক্ষা করে। আমরা সবাই জানি যে শুষ্ক ত্বকে খুব দ্রুত বলিরেখা হয়। এটি ত্বকের টানটানতা বজায় রাখে, যার কারণে ত্বক দ্রুত আলগা হয় না।

তৈলাক্ত ত্বকের বয়স কি ভালো হয়?

এটা সত্য যে যাদের ত্বক তৈলাক্ত তাদের দেরিতে বলিরেখা হওয়ার প্রবণতা থাকে। যাদের তৈলাক্ত ত্বক তাদের শুষ্ক এবং স্বাভাবিক ত্বকের তুলনায় দীর্ঘ সময়ের জন্য তরুণ এবং সুন্দর দেখায়, তবে তাদের মুখে পুঁজ ব্রণ না থাকে।

কোন খাবারের কারণে ত্বক তৈলাক্ত হয়?

দুধ এবং দুগ্ধজাত খাবারের মতো খাবার তৈলাক্ত ত্বকের কারণ হয়। আপনার যদি খুব তৈলাক্ত ত্বক হয় তবে অবশ্যই দুগ্ধজাত খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলতে হবে। এ ছাড়া ভাজা ও বেশি লবণযুক্ত জিনিসও খাওয়া উচিৎ নয়। লবণ আপনার ত্বককে ডিহাইড্রেট করে। পাশাপাশি অ্যালকোহল এড়িয়ে চলুন।

কোন হরমোন তৈলাক্ত ত্বকের কারণ?

এটি মহিলাদের মধ্যে অ্যান্ড্রোজেন নামক হরমোন এবং পুরুষদের মধ্যে টেস্টোস্টেরন নামক হরমোনের কারণে হয়, যার ফলে ত্বক তৈলাক্ত হয়। বয়ঃসন্ধিকালে পৌঁছানোর পর, এই হরমোনগুলি খুব সক্রিয় হয়ে ওঠে। কিছু মহিলাদের মধ্যে, এটি মেনোপজের পরে শুরু হয়।

কেন আমার মুখ সকালে এত তৈলাক্ত হয়?

আসলে দীর্ঘ ঘুমের পর আমাদের ত্বকে একটি মোম এবং আঠালো ফুটো শুরু হয়, যাকে সিবাম বলে। এটি আমাদের ত্বককে নিরাপদ এবং কোমল করে তোলে। আমরা যখন সারা রাত বিশ্রাম করি, তখন আমাদের ত্বকও বিশ্রাম নেয়, যার কারণে এটি থেকে সিবাম বের হতে থাকে।

উপসংহারঃ উপরের প্রস্তাবিত ঘরোয়া প্রতিকারগুলি অবলম্বন করে, আপনি আপনার তৈলাক্ত ত্বকের তৈলাক্ততা চিরতরে দূর করতে পারেন। তবে আপনাকে অবশ্যই সপ্তাহে অন্তত দুবার ব্যবহার করতে হবে। এগুলো ব্যবহার করে দেখবেন আপনার ত্বক দিনে দিনে উজ্জ্বল হয়ে উঠছে। এর জন্য আপনাকে কোনো সুস্থতা কেন্দ্র বা পার্লারেও যেতে হবে না।

আরো পড়ুনঃ

5/5 - (57 votes)

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button