স্বাস্থ্য

বিট ফলের উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম

বিটরুট একটি ভেষজ মূলের সবজি যা প্রায় সারা বছরই পাওয়া যায়। এটি সালাদ, সবজি এবং জুস আকারে খাওয়া হয়। বিটরুট শুধুমাত্র একটি নান্দনিক দৃষ্টিকোণ থেকে উপকারী নয়, এটি স্বাস্থ্যকরও। বিটরুট দেখতে ছোট হলেও বিটরুটের উপকারিতা অসংখ্য। আসুন আমরা এই রঙিন উদ্ভিদ সম্পর্কে বিস্তারিত জানি-

বিটরুট কি?

বীটরুট 30-90 সেমি উচ্চ, মাংসল, কন্দ, পুরু কান্ডযুক্ত, ভেষজ উদ্ভিদ। এর পাতা মূলা বা শালগম পাতার মতো। বীট ফুল 2-3 গুচ্ছ বা একক, দীর্ঘায়িত নলাকার স্পাইক হয়। এর শিকড় বেগুনি লাল বর্ণের। সেপ্টেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বিটরুট ফুলে ওঠে।

বিটরুট এমন একটি সবজি যা শরীরের জন্য খুবই উপকারী, তবে এর পাশাপাশি বিটের ঔষধি গুণও রয়েছে অনেক। বিটরুট চোখের জন্য ভালো, চর্বি কমায় এবং অ্যান্থেলমিন্টিক। বিটরুটের উপকারিতা অনেক।

বিটরুট তীক্ষ্ণ, পিত্ত বৃদ্ধিকারী এবং মূত্রাশয় বা পাইলসের জন্য উপকারী।
লাল বীট পুষ্টিকর।
সাদা বিটরুট প্রস্রাবের রোগে উপকারী।
এর মূল মিষ্টি ও ঠান্ডা। বীটমূল কফ বের করে, দুর্বলতা দূর করে, হিমোগ্লোবিনের পরিমাণ বাড়ায়। এর পাতা সেবন করলে প্রস্রাবের সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, ফোলাভাব, মাথাব্যথা, পক্ষাঘাত এবং কানের ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এর বীজ যৌন ইচ্ছা বাড়াতে সাহায্য করে।

বিটরুটের উপকারিতা ও ব্যবহার beetroot benefits

সাধারণত মানুষ বিটরুট খেতে লজ্জা পান কিন্তু জানেন কি বিটরুট খাওয়ার কত উপকারিতা রয়েছে। এটি বিভিন্ন রোগের জন্য উপকারী। বিটরুটে পাওয়া পুষ্টিকর উপাদানের কারণে স্বাস্থ্যের জন্য অগণিত উপকারিতা রয়েছে, কারণ একজন গবেষকের মতে এতে রয়েছে ভিটামিন সি, বি-১, বি-২, বি-৬ এবং বি-১২। এর পাতা ভিটামিন এ-এরও খুব ভালো উৎস, সেই সঙ্গে বীটরুটকে আয়রনেরও ভালো উৎস হিসেবে বিবেচনা করা হয়। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কীভাবে বিটরুট বা বিটরুট কোন রোগে কাজ করে।

মাথাব্যথায় বিটরুটের উপকারিতা: ঠাণ্ডাজনিত কারণে বা কাজের চাপের কারণে প্রায়ই মাথাব্যথা শুরু হয়। এইভাবে বিটরুট ব্যবহার করলে উপকার পাওয়া যায়। বীটমূলের রস ১-২ ফোঁটা নাকে দিলে কপালের অর্ধেক ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

চুল পড়া বা টাক পড়ায় বিটরুট উপকারী: বীট পাতার রস মাথায় লাগালে মাথার টাক কমে যায় বা বীট পাতা পিষে হলুদ মিশিয়ে মাথায় লাগালেও চুল পড়া কমে যায়।

আরো পড়ুনঃ চুল পড়া বন্ধ করার উপায়, চুল ঘন করার উপায় naturally

খুশকি কমায়: অনেক সময় চুলের ঠিকমতো যত্ন না নেওয়ার কারণে চুলের জন্য বিটরুটের উপকার হয়। বিটরুটের কান্ডের ক্বাথ দিয়ে মাথা ধুয়ে নিলে মাথার খুশকি ও উকুন দূর হয়।

আরো পড়ুনঃ খুশকি দূর করার উপায় প্রাকৃতিকভাবে

মুখের ঘা এবং দাঁতের ব্যথায় উপকারি: আগেই বলা হয়েছে যে বীটরুট অনেক রোগ থেকে মুক্তি পেতে উপকারী। বীট পাতার ক্বাথ তৈরি করে গার্গল করলে দাঁতের ব্যথা ও মুখের ঘা দূর হয়। এইভাবে বিটরুট খাওয়ার উপকারিতা পাওয়া যায়।

বীটরুট কাশি থেকে মুক্তি দেয়: কাশি না কমলে বিটরুটের মূল ও বীজ ব্যবহার করলে কাশি, শ্বাসকষ্ট ও হাঁপানি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

কানের ব্যথা থেকে মুক্তি দেয়: প্রায়শই, ঠান্ডার প্রভাবে বা অন্য কোনো রোগের লক্ষণের কারণে কানে ব্যথা হয়। বীট পাতার রস গরম করে ২ ফোঁটা কানে দিলে কানের প্রদাহ ও ব্যথায় উপকার পাওয়া যায়। কানের ব্যথায় বিটরুট খেলে উপকার পাওয়া যায়।

পেটের রোগের চিকিৎসায় বিটরুট: খাওয়া-দাওয়ায় অশান্তি হোক না কেন, পেটে গোলমাল হওয়া অনিবার্য হয়ে ওঠে। বীটরুটের গুণাগুণ পেতে বিটরুটের বীজের গুঁড়া ১-২ গ্রাম খেলে পেট ফাঁপা এবং কোষ্ঠকাঠিন্যে উপকার পাওয়া যায়।

পাইলসের ক্ষেত্রে উপকারী: বীটমূলের গুঁড়া ঘি সহ ২১ দিন খেলে পাইলস রোগে উপকার পাওয়া যায়। এছাড়া বিটরুটের ক্বাথ তৈরি করে ১০-৩০ মিলিলিটার ক্বাথ সকালে খাওয়ার ১ ঘণ্টা আগে এবং রাতে শোবার সময় পান করলে কোষ্ঠকাঠিন্য ও রক্তাক্ত পাইলস রোগে উপকার পাওয়া যায়।

জ্বালাপোড়া থেকে মুক্তি দেয়: রান্না করতে গিয়ে পুড়ে গেলে বিট পাতার ক্বাথ তৈরি করে ঠাণ্ডা করে পোড়া জায়গায় লাগালে দ্রুত আরাম পাওয়া যায়।

ফ্রেকলস দূর করে: যদি দীর্ঘক্ষণ সূর্যের আলোতে বা দূষণের কারণে মুখে দাগ পড়তে শুরু করে তাহলে বীট পাতার রসে মধু মিশিয়ে মুখে লাগালে দাগ বা দাগ দূর হয়।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে উপকারী: বিটরুটের ব্যবহার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। গবেষণা অনুসারে, বিটের রস পান করলে তা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে।

হার্টের সুস্থতার জন্য: বিটরুট খাওয়া আপনাকে হার্ট সম্পর্কিত সমস্যা থেকে রক্ষা করতে পারে, কারণ বিটরুটে পাওয়া ভিটামিন এবং খনিজগুলি হার্টের নিয়মিত কাজ করতে সহায়ক।

ক্যান্সারের চিকিৎসায় উপকারী: বীটরুট খাওয়া ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক, কারণ এতে পাওয়া অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক।

লিভার সুস্থ রাখে: লিভার সুস্থ রাখতে বিটরুটের ব্যবহার উপকারী। বিটের রস খেলে লিভারে চর্বি জমতে দেয় না এবং লিভারও নিয়মিত কাজ করে।

শক্তি বাড়াতে বীটরুট উপকারী: শরীরে দ্রুত শক্তি জোগাতেও বিটরুটের ব্যবহার একটি ভালো উৎস, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট পাওয়া যায়, যা তাৎক্ষণিক শক্তি দেওয়ার কাজ করে।

হজমের উন্নতি ঘটায়: বিটরুট খাওয়া হজম শক্তি ভালো রাখতে সহায়ক, কারণ এটি লিভারকে শক্তিশালী করে এবং খাবার হজমে সহায়তা করে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে বিটরুট উপকারী: বিটের রস কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে একটি ভালো হাতিয়ার, এটি খারাপ কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমায় এবং ভালো কোলেস্টেরলের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে।

গর্ভাবস্থায় বিটরুটের উপকারিতা: গর্ভাবস্থায় বিটরুট খাওয়া উপকারী। একটি গবেষণা অনুসারে, এটি শিশুদের জন্মগত ত্রুটির সম্ভাবনাও কমায়, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফলিক অ্যাসিড পাওয়া যায়।

রক্তাল্পতার চিকিৎসায় বিটরুটের উপকারিতা: বীটরুট খাওয়া রক্তাল্পতা কাটিয়ে ওঠার অন্যতম সেরা উপায়, কারণ এটি শরীরে আয়রন এবং ফলিক অ্যাসিডের ঘাটতি দূর করে রক্তাল্পতার লক্ষণগুলি কমায়।

হাড় মজবুত করতে বীটরুট উপকারি: বিটরুট সেবন হাড় মজবুত করতে সহায়ক, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়, যা হাড় মজবুত করতে সাহায্য করে।

ওজন কমাতে বীটরুটের উপকারিতা: বীটরুট খাওয়া ওজন নিয়ন্ত্রণে সহায়ক হতে পারে, কারণ এতে রেচক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা শরীর থেকে ময়লা বের করে ওজন কমাতে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ স্বাভাবিক নিয়মে ওজন কমানোর উপায়, স্বাভাবিক খাদ্য গ্রহণে পেটের মেদ কমানোর উপায়, ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার খাওয়ার নিয়ম

ত্বকের জন্য বিটরুটের উপকারিতা: বিটরুটের রসের ব্যবহার ত্বকের জন্য উপকারী, এটি ত্বকের প্রদাহ দ্রুত নিরাময়ে সাহায্য করে।

আরো পড়ুনঃ ত্বক ফর্সা করার ঘরোয়া উপায় রূপচর্চা টিপস, শীতে ত্বকের যত্ন নেয়ার সঠিক নিয়ম

মৃগী রোগে বিটরুটের উপকারিতা: বিটরুট পাতার রস ১-২ ফোঁটা নাকে দিলে মৃগী রোগে উপকার পাওয়া যায়। এ ছাড়া নাক থেকে বিটরুট বাল্বের রস পান করা ডিসপেপসিয়া বা মৃগীরোগ, মাইগ্রেন (অর্ধেক কপালে ব্যথা) এবং অন্যান্য মানসিক রোগে উপকারী।

ব্যথা এবং প্রদাহ থেকে মুক্তি দেয়: বিট তেল দিয়ে মালিশ করলে ব্যথা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। বীট পাতার রসে মধু মিশিয়ে ফোলাতে লাগালে দ্রুত আরাম পাওয়া যায়।

আরো পড়ুনঃ স্বাস্থ্যের জন্য মধু খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা, সুস্বাস্থ্যের জন্য মধু খাওয়ার নিয়ম ও সময়

বিটরুটের দরকারী অংশ

আয়ুর্বেদে বীটরুটের কন্দ, পাতা ও বীজ ওষুধ হিসেবে বেশি ব্যবহৃত হয়।

বিটরুট বা বিটরুট কিভাবে ব্যবহার করবেন?

রোগের জন্য বিটরুট সেবন ও ব্যবহারের পদ্ধতি আগেই বলা হয়েছে। আপনি যদি কোনও নির্দিষ্ট রোগের চিকিৎসার জন্য বিটরুট ব্যবহার করেন তবে অবশ্যই একজন আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী-

-1-2 গ্রাম বীজের গুঁড়া
-10-30 মিলি ক্বাথ সেবন করা যেতে পারে।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

সঠিক পরিমাণে ব্যবহার করলে শরীরে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না। রক্তে অতিরিক্ত পরিমাণে ক্যালসিয়াম গ্রহণ করলে কিডনিতে সমস্যা হয়। ডায়াবেটিস রোগীর খাওয়া ক্ষতিকর। এটি অত্যধিক পরিমাণে সেবন করলে পেটে ব্যথার অনুভূতি হতে পারে।

আরো পড়ুনঃ ডায়াবেটিস কমানোর উপায় ও প্রতিকার, ডায়াবেটিস রোগীর খাদ্য তালিকা ডায়েট চার্ট ও প্ল্যান, ডায়াবেটিসের লক্ষণ

5/5 - (23 votes)

2 Comments

  1. I’m curious to find out what blog system you have been utilizing? I’m experiencing some minor security problems with my latest website and I’d like to find something more safe. Do you have any recommendations?

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button